Mahfuzur Rahman Manik
পেছনের গান
মার্চ 19, 2013

Image-burntBusবোধশক্তিসম্পন্ন প্রত্যেক মানুষই বোধহয় স্বপ্নচারী। প্রত্যেকেরই কোনো না কোনো স্বপ্ন থাকে। কারও স্বপ্ন ভালোভাবে বেঁচে থাকার, কেউ চান বাড়ি-গাড়ি, কারও দরকার ক্ষমতা। প্রধানমন্ত্রী কিংবা রাষ্ট্রপতি হওয়ার স্বপ্নও বিচিত্র নয়। প্রত্যেক স্বপ্নের পেছনে একটা গানও থাকে। যে তিনবেলা পেটপুরে খেতে পারে না তার গানটা খাবারের নিরাপত্তার; তার কাছে ঠিকমতো বেঁচে থাকাই হয়তো স্বপ্ন। যে ভালোভাবে খেতে পারছে তার গান আবার আরেকটা, সে আরও কিছু চায়। স্বপ্নের পেছনের গান তার নিজের অবস্থার ইতিবাচক পরিবর্তন। এর বাইরে কি কোনো স্বপ্ন আছে, কিংবা ভেতরকার কোনো গান? উত্তরটা খুঁজতে হয়তো রাজনীতিবিদদের দ্বারস্থ হতে হবে। যারা রাজনীতি করেন, এটা ঘোষণা দিয়েই করেন যে তারা দেশ ও দশের সেবা করতে চান। তাদের কাছে যেন নিজের উন্নতির চেয়ে দেশের উন্নতিই মুখ্য। যেন তার ক্ষমতা পাওয়ার মূলেও রয়েছে দেশ আর সবার গণতান্ত্রিক অধিকার নিশ্চিত করা। অন্তত প্রত্যেক রাজনৈতিক দলের সংবিধান, গঠনতন্ত্র দেখলে তা-ই মনে হবে। অবশ্য তার ভেতরের গানটা জানা নেই। তবে বাস্তবতায় যে কেউ বিভ্রান্ত হতে বাধ্য। দেশের কয়েক মাসের চিত্র তা-ই বলছে। দেশের উন্নয়নের কথা বললে কেউ দিনের পর দিন হরতাল দিতে পারে না। আরেক দলের অফিসে হামলা করে নেতাদের গ্রেফতার করাও গণতন্ত্রকামী কোনো দলের কাজ হতে পারে না। জনগণের বিভ্রান্ত হওয়ার জন্য এগুলোই যথেষ্ট। রাজনীতিবিদদের রাজনীতি আসলেই দেশ বাঁচানো না দল বাঁচানো সেটা এগুলোর মাধ্যমেই স্পষ্ট হয়ে যায়।
তবে সবার স্বপ্নই যে ব্যক্তিকেন্দ্রিক তা নয়। দেশকে নিয়েও স্বপ্ন দেখেন অনেকে। সবার সামষ্টিক কাজের মাধ্যমেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এসব মানুষ দেশের উন্নতিকল্পে তার জায়গা থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। এই নেতা, নেতৃত্ব নিয়ে তো গবেষণা কম হয়নি। নেতৃত্ব বলতে এতদিন কেবল দায়িত্বকেন্দ্রিক আলোচনাই শোনা গেছে। কোনো প্রতিষ্ঠানে যে প্রধান তাকে কেন্দ্র করেই আমরা নেতৃত্ব শুনেছি। আসলে নেতৃত্বের জন্য কোনো পদের প্রয়োজন নেই। নেতৃত্ব যে কেউ যে কোনো জায়গা থেকে দিতে পারেন। যদি তার কাজ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য হয়। এই মূল কাজ এগিয়ে নিতে সমাজের সর্বস্তরের, সব পেশার মানুষ তার জায়গা থেকে করলেই তিনি নেতৃত্বের কাজ করেছেন। কোনো সমস্যা দেখলে পদে থাকা কারও দিকে না তাকিয়ে তার সমাধানে যিনি নিজে থেকেই এগিয়ে যাবেন তিনিই যথার্থ নেতৃত্ব প্রদর্শন করেছেন। এসব শুনে, বাংলাদেশ ইয়ুথ লিডারশিপ সেন্টার আয়োজিত আগামী দিনের প্রত্যাশিত সাংবাদিকদের তিনদিনের ওয়ার্কশপের সার্টিফিকেট নিয়ে যখন রোববার রাতে বাসায় ফিরব, তখনই নজরে পড়ল দাউদাউ করা একটা বাস। পরের দিন হরতাল বলে সৈয়দ আবুল মকসুদের ভাষায় আগের রাতে যেন হরতালের গায়ে হলুদ হচ্ছে। দীর্ঘক্ষণ যে বাসটির জন্য দাঁড়িয়ে ছিলাম সেটি থেকে যাত্রী নামিয়ে যেভাবে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়েছে তা দেখে যেন তিনদিনের প্রশিক্ষণের সব ভুলে গেলাম। নেতৃত্বের দায়িত্ব তখন আমার চোখে দাউদাউ করা আগুনের হাহাকার। একজন যাত্রীও যদি তখন বাস থেকে নামতে না পারতেন তার অবস্থা ভেবে অসহায়ত্ব যেন আরও বেড়ে গেল। চিন্তা করছিলাম রাজনীতিবিদদের দেশসেবার, জনসেবার স্বপ্ন দেখানোর পেছনের গানটা আসলে কী?

 

 

ট্যাগঃ , , , , , , , , ,

2 comments on “পেছনের গান”

  1. পেছনের গানটা মনে হয় স্বার্থপরতা, ক্ষমতার লোভ, আর কুশিক্ষা এবং জবাবদিহিতার অভাব।
    কেন জানি মনে হয়, আমরা এগুলা ডিজার্ভ করি, তাই পাচ্ছি।

    1. পেছনের গান আপনি ঠিকই ধরছেন। আর এগুলো ডিজার্ভ করার ভাবনাটাও হয়তো অমূলক নয়, বলে না ‌'যেমন রাজা তেমন প্রজা' কিংবা উল্টা করে বললে 'যেমন প্রজা তেমন রাজা'।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।