Mahfuzur Rahman Manik
চৌদ্দ দলের সংকট কি কাটবে?
student politics in private university

আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলের বয়স দু্‌ই দশক হবে আগামী বছর। ওই সময় পর্যন্ত ২৩ দফা কর্মসূচির ভিত্তিতে প্রধানত মধ্যপন্থা ও বামপন্থার সমন্বয়ে গঠিত জোটটি টিকে থাকবে কিনা– সে প্রশ্নই ইদানীং উঠেছে। এমনকি শুক্রবার সমকালের এক খবর অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৃহস্পতিবারের বৈঠকেও এ জোটের প্রাসঙ্গিকতা নিয়ে খোদ শরিকরাই প্রশ্ন তুলেছেন। প্রধানমন্ত্রী শরিক দলের নেতাদের আপাতত এ বিষয়ে আশ্বস্ত করলেও, নেতারা এতে কতটুকু আশ্বস্ত হয়েছেন, তা সময়ই বলে দেবে। কারণ, গত ৭ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে ১৪ দল একসঙ্গে নির্বাচন করবে– প্রধানমন্ত্রীর এমন আশ্বাসে জোট শরিকদের বেশ খুশি হতে দেখা গিয়েছিল। কিন্তু নির্বাচনকালে এবং নির্বাচনের পর শরিকরা জোটের প্রধান দলের ভূমিকা নিয়ে কেবল হতাশাই প্রকাশ করেছে।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন জোরদারে ২০০৫ সালের ১৫ জুলাই আনুষ্ঠানিকভাবে ১৪ দল গঠিত হয়। এ জোট গঠনের আগে এর সদস্য ওয়ার্কার্স পার্টি, সাম্যবাদী দল, বাসদ, গণতন্ত্রী পার্টিসহ অন্যান্য বামদল ১১ দলীয় বাম জোটের সদস্য ছিল। ন্যাপ ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) স্বতন্ত্রভাবে কাজ করছিল। পরবর্তী সময়ে আনোয়ার হোসেন মঞ্জুর জাতীয় পার্টি (জেপি), তরীকত ফেডারেশনসহ আরও কয়েকটি দল ১৪ দলে যোগ দেয়। তবে জোটের বেশির ভাগ দল অন্তত কাগজ-কলমে হলেও বাম মতাদর্শের হওয়ায় ১৪ দলকে বর্তমান ক্ষমতাসীনদের সঙ্গে বামদের জোট হিসেবেই ধরা হয়।

জোট শরিকদের বক্তব্য অনুসারে, ১৪ দলের প্রতিষ্ঠাকালীন অঙ্গীকার ছিল– একসঙ্গে আন্দোলন, একসঙ্গে নির্বাচন ও একসঙ্গে সরকার গঠন। ২০০৮, ’১৪ ও ’১৮ সালের নির্বাচন পর্যন্ত তাদের এ রসায়ন ভালোই চলছিল। প্রথম দুই সরকারে ১৪ দলীয় জোট শরিকদের কয়েকটি মন্ত্রিত্বও দেওয়া হয়। তবে ২০১৮ সালের নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগ অনেকটাই ‘একলা চলো’ নীতি গ্রহণ করে। ফলে ২০১৯ সালে তৃতীয় দফায় গঠিত সরকারে যেমন জোট নেতাদের ভাগ্য খোলেনি, তেমনি এবার চতুর্থ মেয়াদের সরকারেও শরিক দলের কোনো নেতা ঠাঁই পাননি।

মন্ত্রিত্ব তো অনেক দূরের বিষয়; দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জোটের তিন শরিক দলকে মাত্র ছয়টি আসনে আওয়ামী লীগ নৌকা প্রতীকে ছাড় দেয়। এর মধ্যে চারটিতেই আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয়লাভ করেন। স্বাভাবিকভাবেই শরিকদের মধ্যে ক্ষোভ ও অসন্তোষ চরম আকার ধারণ করে। সেই ক্ষোভ প্রশমনেই নতুন সরকার গঠনের সাড়ে চার মাস পর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ১৪ দলের বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হলো।

এই যে বড় শরিকের উপেক্ষার শিকার হয়ে ছোট শরিকদের হতাশ হওয়া এবং শেষমেশ প্রধানমন্ত্রীর কিছু আশ্বাস পেয়ে তাদের পুনরায় চাঙ্গা হওয়া, এর মধ্যে একটা বিষয় পরিষ্কার– প্রত্যাশিত ক্ষমতার ভাগ না পেয়েও এখন ছোট শরিকদের ক্ষমতাসীনদের আশ্বাসেই খুশি থাকতে হয়।

একই সঙ্গে এটিও বলা যায়, যে ২৩ দফা বাস্তবায়নে ১৪ দলীয় জোট গঠিত হয়েছিল, তার কতটা বাস্তবায়িত হয়েছে– সে প্রশ্ন তোলারও সময় এসেছে। ২৩ দফায় দুর্নীতি, সন্ত্রাস ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে আন্দোলনের বিষয় যেমন আছে, তেমনি দ্রব্যমূল্য সহনীয় রাখা, রাষ্ট্র পরিচালনায় সংবিধানের প্রাধান্য, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, দলীয়করণ বন্ধ, মেধা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে নিয়োগ, বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড বন্ধ, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ও নিরপেক্ষতা নিশ্চিত করাও এর অন্তর্ভুক্ত। দুর্নীতি দমন কমিশনকে প্রকৃত স্বাধীন ও কার্যকর প্রতিষ্ঠানে পরিণত করাসহ সীমান্তে শান্তি প্রতিষ্ঠাও ২৩ দফার উল্লেখযোগ্য বিষয়। এর অধিকাংশই যে এখনও অধরা– তা কেউ অস্বীকার করতে পারবে না।

যদি বলা হয়, এ অবস্থা জোটের বাম শরিকদের অস্তিত্বকেও হুমকি মুখে ফেলেছে, তা হলে ভুল হবে না। ২৩ দফার কথা বলেই তারা তাদের দীর্ঘ সময়ের অন্য বাম সঙ্গীদের ছেড়ে ১৪ দলে গিয়েছিল। এখন ১৪ দলের বাইরের বাম দলগুলো ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদসহ এ জোটের বাম দলগুলোর বাম সত্তা নিয়েই প্রশ্ন তুলছে। এ দলগুলো ক্ষমতার ভাগ পাচ্ছে না, আবার বিরোধী শিবিরের বাম শরিকদের কাছে অবমূল্যায়িত হচ্ছে–অনেকটা না ঘরকা, না ঘাটকা অবস্থা। লক্ষণীয়, বৃহস্পতিবারের বৈঠকে ১৪ দলের নেতারা বঞ্চনা ও অবমূল্যায়নের কারণে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন; কিন্তু ২৩ দফার বাস্তবায়ন নিয়ে তেমন কোনো কথা বলেননি। ১৪ দলের নেতারা জোট করে ইতোমধ্যে যে মন্ত্রী-এমপি হয়েছেন, সেটা একাকী হয়তো সম্ভব হতো না।

কৃতজ্ঞতাবোধ থেকেই হয়তো তারা প্রধানমন্ত্রীর কথায় আশ্বস্ত হয়েছেন।

তবে দেশের বিদ্যমান রাজনৈতিক অবস্থায় ১৪ দলের গুরুত্ব এখনও কম নয়। দীর্ঘদিন বাজারে অস্থিতিশীলতা বিরাজ করছে; মূল্যস্ফীতিতে সাধারণ মানুষ নাজেহাল। গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলো আরও দুর্বল হয়েছে। ভোটের প্রতি মানুষের আস্থা কতটা– সে প্রশ্নও রয়েছে। এসব বিষয়ে ১৪ দলের শরিকরা সরব হলে সাধারণ মানুষের আস্থা তারা পেতে পারে। তা না হলে আওয়ামী লীগ হয়তো দৃঢ় জনভিত্তির কারণে টিকে যাবে, অন্য শরিকদের নিশ্চিত অস্তিত্ব সংকটে পড়তে হবে।

সমকালে প্রকাশ: ২৫ মে ২০২৪

ট্যাগঃ , , ,

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।


Warning: First parameter must either be an object or the name of an existing class in /home/mahfuzma/public_html/wp-content/plugins/bit-form/includes/Admin/Form/Helpers.php on line 119

Warning: First parameter must either be an object or the name of an existing class in /home/mahfuzma/public_html/wp-content/plugins/bit-form/includes/Admin/Form/Helpers.php on line 119

Warning: First parameter must either be an object or the name of an existing class in /home/mahfuzma/public_html/wp-content/plugins/bit-form/includes/Admin/Form/Helpers.php on line 119