নামে কিংবা গুণে

দুনিয়ার সবকিছু প্রাথমিকভাবে নামেই পরিচিত। ব্যক্তির নাম, বস্তুর নাম, জায়গার নাম ইত্যাদি নাম ছাড়া চেনা অসম্ভব। অবশ্য অনেকে নামের সঙ্গে গুণের কথাও বলেন। তা হয়তো ঠিক। কিন্তু অনেক বিষয় আছে আসলে নামের সঙ্গে কোনো মিলই নেই। যেমন হাতিরঝিলে এখন কোনো হাতি নেই। মতিঝিলে মোতি নেই, ঝিলও নেই। আর রূপনগরে রূপ থাকবে কেমনে! সম্প্রতি এক ব্লগে ব্লগার তা-ই লিখেছেন, ‘রূপনগরের’ রূপের বাহার দেখি না! মিরপুরের রূপনগর সত্যিকারার্থেই এমন এক জায়গা, যেখানে রূপের বিপরীত সব চিত্র দৃশ্যমান। রাস্তার ঠিক নেই, চলছে যখন-তখন খোঁড়াখুঁড়ি, যেখানে-সেখানে বসে আছে হকার। চলাচলের ভালো যানবাহন নেই। নিয়ম-শৃঙ্খলার বালাই নেই। এটাই রূপনগর।
কেবল রূপনগর নয়, রাজধানীর অনেক এলাকার অবস্থাই এ রকম। দোষ যে কেবল নামের তা নয়। নাম কতগুলো নিরীহ বর্ণ কিংবা শব্দের সমন্বয়ে গঠিত। যদিও নাম রাখতে কেউই কম যান না। কে কত সুন্দর নামে নামকরণ করতে পারে সে প্রতিযোগিতা দেখা যায়। এতে তার দোষই বা কী। শান্তিনগরের নাম যিনি রেখেছেন সেখানে অশান্তির কিছু ঘটলে দায় তার ঘাড়ে পড়বে কেন? কারও নাম ইজ্জত উল্লাহ হলে তিনি বেইজ্জতির কিছু করলে, দোষ তো আর নামকারকের নয়। আবার নামের বিপরীত চিত্রও তো আছে। বহুল ব্যবহৃত উদাহরণ বোধহয় আলমের পচা সাবান। সাবানের বিজ্ঞাপনেই রয়েছে, নামে নয়_ গুণে পরিচয়। বলাবাহুল্য, এই আলমের পচা সাবান কারখানাকেই গত বছর বিএসটিআইয়ের অনুমোদন ও পণ্য ক্রয়-বিক্রয়ের লাইসেন্স না থাকায় সাড়ে ৩ লাখ টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। সে ভিন্ন প্রসঙ্গ।
দুনিয়াজোড়া যত নাম আছে সবই তার গুণ ও কাজের কারণে মহিমান্বিত ও পরিচিত। ফেসবুক আমাদের কাছে যতটা পরিচিত অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কিন্তু ততটা পরিচিত নয়। কারণ ফেসবুকের মাহাত্ম্যই এমন। সবকিছুর ক্ষেত্রেই এ রকম। দুনিয়াজুড়ে বিল গেটসকে যতজন চেনেন আমাদের অনেককেই নিশ্চয়ই ততটা মানুষ চেনে না। তার হাত, পা, মাথা কোনো দিক থেকেই তিনি সংখ্যায় বেশি নন। কিন্তু সম্পদে বেশি। আধুনিক প্রযুক্তি উদ্ভাবনে সুদক্ষ। এ গুণই তাকে বিশ্বপরিচিতি দিয়েছে। এখানে নামের কোনো ব্যাপার নেই। আব্দুল্লাহ নামের কোনো ব্যক্তিরও যদি পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি টাকা থাকে তিনি তেমন পরিচিত হবেন।
আসলে প্রশ্নটা কাজের। নাম যা-ই হোক, কাজে ভালো করার মধ্যেই সফলতা। এটা ঠিক, ভালো নামেরও গুরুত্ব রয়েছে, তবে সেটা অবশ্যই কাজের চেয়ে বেশি নয়। এ জন্যই অনেকে বলেন, নামের বড়াই নয়। এখানে এটাও বোধ হয় প্রাসঙ্গিক, অনেকে নিজের চেয়ে অন্যের নামে পরিচিত হতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। তার মামা এটা করেছেন, কিংবা অমুকে এটা করেছেন। তিনি তার সঙ্গে এভাবে সম্পর্কিত। তাতে ব্যক্তির কৃতিত্ব কমই। এখানেই এ প্রবাদও বলা যায়, ‘গ্রন্থগত বিদ্যা পরহস্তে ধন, নহে বিদ্যা নহে ধন হলে প্রয়োজন।’ নিজের পরিচয় প্রতিষ্ঠা করতে না পারলে, নিজের নামে পরিচিত হওয়ার যোগ্যতা অর্জন না করলে কাজের সময় সবই বৃথা। আপনার পরীক্ষার হলে নিশ্চয়ই অন্য কেউ যাবে না। আপনার যোগ্যতায়ই পাস করতে হবে। অবশ্য বিজ্ঞরা এসব অনেক আগেই বলে রেখেছেন। কিন্তু আমরা ভুলে যাই। ব্যর্থতা আমাদেরই।

 

 

Post By মাহফুজ মানিক (496 Posts)

Mahfuzur Rahman Manik, Profession: Journalism, Alma Mater: University of Dhaka, Workplace: The Daily Samakal, Dhaka, Birthplace: Chandpur, Twitter- https://twitter.com/mahfuzmanik, Contact: mahfuz.manik@gmail.com

Website: →

Connect


2 thoughts on “নামে কিংবা গুণে

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *