Tag Archives: মিয়ানমারের সামরিক অভ্যুত্থান

সেনা অভ্যুত্থান: রোহিঙ্গাদের জন্য দুঃসংবাদ

লেখক:  মেরভে শেবনেম ওরুচ

এ সপ্তাহে ( ফেব্রুয়ারি) দক্ষিণ এশিয়ার দেশ মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থান ঘটেছে। মিয়ানমারের নেত্রী ও স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি, সু চির বিশ্বস্ত ও মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট উইন মিন্ট এবং তার দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি তথা এনএলডির সদস্যদের গ্রেপ্তার করে সেনা শাসক এক বছরের জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। এটি বলার অপেক্ষা রাখে না যে, প্রায় সব ক্যু-ই নির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে ‘দুর্নীতি’ কিংবা ‘অনিয়মের’ নামে হয়ে থাকে। মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী, যাদের দাপ্তরিক নাম তাৎমাদো-ও একই অভিযোগ এনেছে। মিয়ানমারে নভেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে এনএলএডির ভূমিধস বিজয়, যেখানে ক্ষমতাসীন দলটি ৮০ শতাংশের বেশি ভোট পেয়েছে। তারা ২০১৫ সালের চেয়েও বেশি ভোট পেয়েছে। নির্বাচনে সু চির দল ভুয়া ভোটারের অভিযোগ এনেছে। মিয়ানমারের নির্বাচনে সংসদের ৪৭৬টির মধ্যে এনএলডি ৩৯৬ আসনে জিতেছে। আর সেনাসমর্থিত দি ইউনিয়ন সলিডারিটি অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি (ইউএসডিপি) মাত্র ৩৩টি আসন পেয়েছে। সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরুর আগমুহূর্তেই সেখানে সামরিক অভ্যুত্থান হলো। দেশটির শক্তিশালী কমান্ডার সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান সেনাবাহিনীর সিনিয়র জেনারেল মিং অং হ্লাইং এখন দেশটির প্রেসিডেন্ট।

১৯৬২ সালের পর প্রায় অর্ধশতক সামরিক জান্তার শাসন দেখেছে দেশটি। যেখানে বার্মিজ জাতীয়তাবাদী ও থেরাভাডা বৌদ্ধদের মিলমিশের শাসনে দেশটির সংখ্যালঘুরা মারাত্মক বৈষম্যের শিকার হয়। সেখানে অন্তত একশ জাতিগোষ্ঠী বাস করছে। মিয়ানমার সরকার ও সেনাবাহিনী সেখানে ১৬টি সশস্ত্র জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে লড়াই করে আসছে, যাদের অনেকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে চায়। আর অন্যরা স্বাধীনতা, স্বায়ত্তশাসন কিংবা দেশটিতে ফেডারেল সরকার চায়। Continue reading