Tag Archives: প্রকৃতি

লম্বা কিংবা খাটো

Tall_Small-peopleমানুষের বৈচিত্র্য তার ব্যক্তিত্বে, আচরণে, চরিত্রে এবং উচ্চতায়ও। যদিও দুনিয়ার এক মানুষের সঙ্গে অন্য মানুষের চেহারায় মিল না থাকলেও উচ্চতায় মিল থাকতে পারে। সেদিক থেকে উচ্চতাগত বৈচিত্র্য কম। তারপরও লম্বা, মধ্যম, খাটো_ তিন ধরনের বিশেষণে বিশেষায়িত করা যায়। এ বিশেষণ পৃথিবীর সবার জন্য সত্য। তবে ব্যক্তিগত হিসেবের বাইরে দেশ-অঞ্চলভেদেও পার্থক্য দেখা যায়। মঙ্গলবার বিবিসি অনলাইন উচ্চতা নিয়ে এক গবেষণার খবর দিয়েছে। তাতে দেখা যাচ্ছে, নেদারল্যান্ডসের পুরুষ ও লাটভিয়ার নারী সবচেয়ে বেশি লম্বা। ই-লাইফ জার্নালে প্রকাশিত গবেষণাটিতে উচ্চতায় গত একশ’ বছরের ট্রেন্ড বিশ্লেষণ করা হয়েছে। গবেষণায় বাংলাদেশ প্রসঙ্গও এসেছে। যেখানে বেঁটের তালিকায় বাংলাদেশের নারীরা রয়েছেন দ্বিতীয় স্তরে।

মানুষের উচ্চতা যেমন জিন ও পরিবেশগত বিষয়ের ওপর নির্ভর করে, তেমনি নির্ভর করে তার খাদ্য ও পুষ্টির ওপর। সার্বিক সুস্থতা ও হরমোনের ওঠানামার সঙ্গেও উচ্চতার সম্পর্ক রয়েছে। সাধারণত দেখা যায়, লম্বা মা-বাবার সন্তান লম্বা হয়। বেঁটে দম্পতির সন্তান বেঁটে হয়। তবে ব্যতিক্রমও রয়েছে। অনেক সময় লম্বা দম্পতির সন্তান যেমন বেঁটে হয়, তেমনি বেঁটে দম্পতির সন্তানও লম্বা হতে দেখা যায়।
উচ্চতার দিক থেকে বলা চলে, বাংলাদেশের মানুষের অবস্থান মাঝামাঝি পর্যায়ে। গালিভারসের গল্পের মতো Continue reading

পাহাড়ে ধূলিঝড়

Kathmandu

কাঠমান্ডুতে হঠাৎই ধূলিঝড়ের আবির্ভাব

ধূলিঝড়ের অভিজ্ঞতা অনেকের থাকার কথা নয়। নদী-নালা-খাল-বিল-পুকুরের বাংলাদেশে মরু অঞ্চলের মতো ধূলিঝড় হয় না। প্রবাসে বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যে যারা থাকেন, তাদের সে অভিজ্ঞতা হতে পারে। বই পড়ে কিংবা সংবাদমাধ্যমের কল্যাণেও অনেকে জানতে পারেন। ইন্টারনেটের মাধ্যমেও যে কেউ দেখতে পারেন। প্রচণ্ড বেগের বাতাসে কীভাবে ধূলি ওড়ে; ঘূর্ণিঝড়ের মতো ধূলিঝড় কীভাবে দিনকে রাতের অন্ধকারে পরিণত করে; কীভাবে পথিক ধূলিঝড়ের কবল থেকে নিজেকে রক্ষা করেন; অপ্রতিরোধ্য ধূলিঝড়ে কীভাবে মানুষের জানমালের ক্ষতি হয়। ধূলিঝড়ের খবর হিসেবে কাঠমান্ডু আমাদের সামনে এসেছে। প্রতিবেশী নেপালের রাজধানী কাঠমান্ডুতে সোমবারের ধূলিঝড়ের প্রভাব ঢাকায় এসে পেঁৗছেনি হয়তো; কিন্তু প্রতিবেশী হিসেবে খবরটি গুরুত্ববহ। কাঠমান্ডুর পত্রিকা লিখেছে, সেদিন বিকেলে রাজধানীর বিভিন্ন জায়গায় এ ঝড় ওঠে। ৪৫ মিনিটের ধূলিঝড়ে গোটা এলাকা অন্ধকারাচ্ছন্ন হয়ে যায়। মানুষ রাস্তার মাঝখানে যানবাহন থামিয়ে দেয়। হাজার হাজার গণপরিবহন রাস্তায় আটকা পড়ে। সেখানকার ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এক ঘণ্টার জন্য বন্ধ হয়ে যায়। বিমানের রানওয়ের ধুলা পরিষ্কার করার পর তা খুলে দেয় কর্তৃপক্ষ। পশ্চিম দিক থেকে ওঠা এ ধূলিঝড়টির গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ৮২ কিলোমিটার। ধূলিঝড়ে গাছ উপড়ে পড়ার দৃশ্যও দেখা গেছে।
সাধারণত শুষ্ক বা আধা-শুষ্ক ও অনুর্বর অঞ্চলে ধূলিঝড় ওঠে। এ ঝড়ে বাতাসের প্রচণ্ড গতির সঙ্গে ধূলিকণা আলগা হয়ে উড়তে থাকে। এভাবে এক জায়গার মাটি আরেক জায়গায় গিয়ে পড়ে। বিশেষত উত্তর আফ্রিকা ও আরব উপদ্বীপে ধূলিঝড় বেশি দেখা যায়। Continue reading

অতিথি পাখি কিংবা আমাদের চড়ূই

Guestসম্প্রতি ইংল্যান্ডের গার্ডিয়ান পত্রিকার লাইফ অ্যান্ড স্টাইল বিভাগের নোটস অ্যান্ড কোয়েরিজে পাঠকদের করা হয় প্রশ্নটি– হোয়্যার ডু স্প্যারোজ গো ইন দ্য উইন্টার বা শীতে চড়ূই পাখি কোথায় যায়? অতিথি পাখির কথা চিন্তা করে উত্তরটা হয়তো আমরা আশা করব বাংলাদেশ। কিন্তু গত ১০ ডিসেম্বরে ছবিসহ পোস্ট করা প্রশ্নটিতে সোমবার বিকেল (১২ জানুয়ারি ‘১৫) পর্যন্ত পাঠকের ২৮টি মন্তব্যে কেউই বাংলাদেশের নাম বলেননি। ইংল্যান্ডের পরিপ্রেক্ষিতে অনেকেই সেখানকার স্থানীয় জায়গার কথা বলেছেন। তবে প্রশ্নটির সঙ্গে যে মেইল ঠিকানা দেওয়া হয়েছে তাতে কে কী উত্তর দিয়েছেন জানা নেই। Continue reading

গ্রিন স্কুল, রবীন্দ্রনাথ এবং প্রাসঙ্গিক ভাবনা

GreenSchool-Bali

ইন্দোনেশিয়ার বালিতে অবস্থিত গ্রিন স্কুল

রবীন্দ্রনাথ কি আজকের দুনিয়ার গ্রিন আন্দোলনের কথা জানতেন? সবকিছুকে গ্রিন করার যে আয়োজন এখন সর্বত্র। ‘গ্রিনের’ তালিকায় কত কিছুই না আছে; গ্রিন টেকনোলজি, গ্রিন পার্টি, গ্রিন ইকোনমি, গ্রিন টি, গ্রিন ডে, গ্রিন বুক ইত্যাদি। জানুয়ারিতে ব্রিটেনের গার্ডিয়ানের একটি প্রতিবেদন পড়ে এই তালিকায় গ্রিন স্কুলের খবরও জানা গেল। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে কয়েক বছর ধরে এই গ্রিন স্কুল রয়েছে। আমাদের দেশে গ্রিন স্কুল এখনও সেভাবে নেই। গ্রিন স্কুলের সঙ্গে সাক্ষাৎ পরিচিতি না থাকলেও রবীন্দ্রনাথের বিদ্যালয়ের ধারণা থেকে সহজেই তা অনুমান করা যায়। প্রায় একশ’ বছর আগে তিনি যে ধারণা দিয়েছেন সেটাই তো প্রকৃত গ্রিন স্কুল। লোকালয় থেকে দূরে নির্জন পরিবেশে গাছপালার মধ্যে স্থাপিত বিদ্যালয়কেই আদর্শ বিদ্যালয় বলেছেন রবীন্দ্রনাথ। যেখানে শিক্ষকরা নিভৃতে নিজেরা জ্ঞানচর্চা করবেন এবং ছাত্রদের শিক্ষা দেবেন। যে বিদ্যালয়ের সঙ্গে ফসলি জমি থাকবে, দুধের গরু থাকবে; এগুলো ছাত্ররাই পড়াশোনার অবসরে দেখাশোনা করে নিজেদের আহারের ব্যবস্থা করবে। Continue reading