Tag Archives: গণপরিবহন

খালি সিট, ভরা রাস্তা

কৌতুক হিসেবে হয়তো অনেকেই জানেন- বাবা-ছেলে বাসে উঠেছে, সিট না পেয়ে দাঁড়িয়ে যাচ্ছে। হঠাৎ বাসের মধ্যে এক লোক পাগলামি শুরু করল। ছেলে জিজ্ঞেস করছে, বাবা লোকটা কী করছে? বাবা বলছেন, লোকটা পাগল, ওর মাথায় সিট আছে। ছেলে বলল, তাহলে আমি ওই সিটেই বসব। হায় অবুঝ ছেলে হয়তো জানে না, এ যে সে সিট নয়!

ঢাকা শহরে একটি বাসে যখন সিট নেই, দাঁড়িয়ে গাদাগাদি করে যাচ্ছে যাত্রী, তখন হয়তো পাশেই চলছে খালি প্রাইভেটকার। তাতে অবশ্য কারও অসুবিধা নেই; কিন্তু সমস্যা যানজট। এটা কেবল ঢাকার চিত্রই নয়। অন্য শহরেও আমরা দেখছি। নিউইয়র্কের ম্যানহাটনের ট্রাফিক সমস্যা নিয়ে গবেষণা করেছেন পরিবহন বিশেষজ্ঞ ব্রুস স্ক্যালার। তার প্রতিবেদনের শিরোনাম দিয়েছেন- এম্পটি সিটস, ফুল স্ট্রিটস অর্থাৎ খালি সিট, ভরা রাস্তা। গত শনিবার এ গবেষণার খবর দিয়েছে বিবিসি। ‘হাউ দ্য ইন্টারনেট ইজ ক্লগিং আপ সিটি স্ট্রিটস’ বা ‘ইন্টারনেট কীভাবে রাস্তা ভারাক্রান্ত করছে’ শিরোনামের খবরে তার বিস্তারিত রয়েছে। ম্যানহাটনের ট্রাফিক জ্যামের অন্যতম কারণ ইন্টারনেট। এখানে ইন্টারনেটের ভূমিকা কোথায়? সেটাও অবোধগম্য নয়। ম্যানহাটনে ইন্টারনেট অ্যাপের মাধ্যমে রাইড শেয়ারিংয়ের পরিমাণ চার বছরে বেড়েছে ৮১ ভাগ। পুরো নিউইয়র্ক সিটিতে এখন রাইড শেয়ারিং চালকের সংখ্যা প্রায় ৬৮ হাজার। স্বাভাবিকভাবেই এটি পুরো ট্রাফিক ব্যবস্থায় প্রভাব ফেলছে। তার চেয়ে বড় বিষয় যেটি গবেষণায় উঠে এসেছে, রাইড শেয়ারিংয়ের গাড়িগুলো ৪৫ ভাগ সময়ই রাস্তায় ভাড়া পাওয়ার আশায় ঘোরে। এতে অযথাই ব্যস্ত রাস্তা আরও ভারাক্রান্ত হয়। তাতে যানজট লাগাও অস্বাভাবিক নয়।

ঢাকার রাস্তায়ও এখন জনপ্রিয় রাইড শেয়ারিং। উবার, পাঠাও, সহজ রাইডসহ কয়েকটি মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেল ডেকে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় সহজেই মানুষ যেতে পারছে। Continue reading

গণপরিবহন ও জনজীবন

Dhakaবাসস্ট্যান্ডে দাঁড়িয়ে আছেন। অগণিত যাত্রী। চাতক পাখির মতো একটা বাসের অপেক্ষা। বাস আসবে। সবাই উঠবে। কিন্তু কোথায় কি! বাস আসছে। দিব্যি দরজা বন্ধ করে আছে। বাইরের অপেক্ষমাণ মানুষের আকুতি শোনার সময় নেই। আসলে পর্যাপ্ত যাত্রী আগেই তোলা হয়ে গেছে। আবার অপেক্ষার পালা। বাস আসে। দাঁড়ায় না কেউই। এবার বুঝি প্রতীক্ষার প্রহর শেষ হবে। কিন্তু বাসের দরজার বাইরেও ঝুলছে যাত্রী। যাত্রী নামবে দু’জন। উঠার জন্য অন্তত ২০ জনের হুমড়ি খেয়ে পড়া। অতঃপর ধাক্কিয়ে পাঁচজনের ওঠা। আপনিও তাদের একজন। কোনোমতে ঝুলে যাচ্ছেন। সময়মতো অফিস ধরতে হবে। কিংবা অফিস শেষে সারাদিনের ক্লান্তি নিয়ে বাসায় ফিরবেন। ঝুলতে ঝুলতে একসময় জায়গা পেলেন বাসের মেঝেতে। দাঁড়িয়ে আছেন। ধীরে ধীরে মানুষ নামছে। অনেক পরে একটা সিটের দেখা পেলেন। বসে হাঁফ ছেড়ে বাঁচলেন। জীবন বুঝি এমনই। পৃথিবীতে কোথাও নিজের জায়গা করার উদাহরণটা যেন ঢাকার বাসে জায়গা পাওয়ার সঙ্গে মিলে যায়। যেখানে আপনার প্রবেশ কষ্টসাধ্য সেখানে অনেক কষ্টে আপনাকে কোনোমতে দাঁড়াতে হবে, তারপর ধীরে ধীরে সেখানে আপনার জায়গা হবে। Continue reading

ভোগান্তির শহরে!

বাসমানুষের অনুভূতি বিচিত্র। কোনো কিছু পড়ে, দেখে, শুনে, বুঝে সে অনুযায়ী প্রতিক্রিয়া হয়। দুঃখের বিষয়, পড়ে মানুষ কঁাঁদে, হাসির কিছু পড়ে হাসে আবার বিপদমুক্ত হওয়ার খবর পড়ে সে একটা নিঃশ্বাস নেয়। এসবের আচরণও তথৈবচ; দাগি অপরাধীর ঘটনা পড়ে, শুনে বা দেখে তাকে মারতে ইচ্ছা হয়; কেউ খুব ভালো কাজ করার কথা শুনলে তার মতো হওয়ার ইচ্ছা জাগে কিংবা হিংসা হয়; চোখের সামনে কেউ গাড়ির নিচে পড়তে গেলে তাকে টেনে ধরে বাঁচাতে চাই। এসবই কিন্তু অনুভূতির বিষয়। মানুষ যে মানুষ বোধহয় এই অনুভূতিও তার অন্যতম পরিচায়ক। যার অনুভূতি নেই তাকে হয়তো সবাই পাগলই বলবে।
অনুভূতির প্রতিক্রিয়া মানুষে মানুষে ভিন্ন হওয়াই স্বাভাবিক। চিকিৎসার অভাবে মারা যাচ্ছে_ সংবাদপত্রে প্রকাশিত এ রকম কোনো খবর প্রধানমন্ত্রীর গোচরীভূত হলে, তিনি চাইলে রাষ্ট্রীয় খরচে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে পারেন। অন্যদিকে যার ক্ষমতা নেই একই খবরে তার প্রতিক্রিয়া কেবল আফসোসেই হয়তো সীমাবদ্ধ থাকবে। ফলে ক্ষমতা এখানে গুরুত্বপূর্ণ। Continue reading

গণপরিবহন!

ডারউইনের কথা তো ফেলনা নয়, সার্ভাইভাল অব দ্য ফিটেস্ট_ যোগ্যতমরাই টিকে থাকে। ঢাকা শহরের গণপরিবহনের কথা চিন্তা করলে মনে হবে শক্তিমানরাই বুঝি যোগ্যতম। শক্তির যোগ্যতার বাইরে গণপরিবহনে নিজের স্থান করে নেওয়ার, টিকে থাকার অন্য কোনো মাধ্যম নেই। যদিও নামে গণপরিবহন। পাবলিক ট্রান্সপোর্ট। জনসাধারণের চলাচলের পরিবহন। কাজে শক্তিমানদের আধিপত্য। আপনি শক্তিমান_ চলন্ত গাড়িতে লাফ দিয়ে উঠতে পারবেন, কয়েকজনকে ধাক্কিয়ে বাসে জায়গা করে নিতে পারবেন কিংবা বাসের দরজায় ঝুলে থেকে গন্তব্যস্থলে যেতে পারবেন। আপনারই জয়। সেখানে দুর্বলের স্থান নেই। বিশেষ চাহিদাসম্পন্নদের (ডিজঅ্যাবল) কথা বলাই বাহুল্য। এর বাইরে নারীরাও যে কত ভোগান্তির শিকার হয়ে এগুলোতে চলাফেরা করেন, তা সবারই জানা। Continue reading