Tag Archives: ইলন মাস্ক

ইলন মাস্কের ‘টুইটার চ্যালেঞ্জ’

মূল লেখক: জেনিফার রুবিন

ভাষান্তর: মাহফুজুর রহমান মানিক

টুইটার সোমবার (২৫ এপ্রিল ২০২২) ঘোষণা করেছে- এর পরিচালনা পর্ষদ ইলন মাস্কের ৪৪ বিলিয়ন ডলারের অফার গ্রহণ করেছে। তার মানে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের যে প্ল্যাটফর্মটি সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও বিশেষভাবে তার রাজনীতিকে হারাতে ভূমিকা পালন করেছে; সেই টুইটার ব্যাপক জল্পনাকল্পনার জন্ম দিয়ে ইলন মাস্কের মালিকানায় যাচ্ছে। কিন্তু প্রশ্ন হলো, যে ব্যথা তার ঘাড়ে নিয়েছেন, সে জন্য তিনি কতটা প্রস্তুত। ইলন মাস্ক টুইটার নিয়ে তার ভিশন ব্যাখ্যা করেছেন এভাবে, ‘স্বাধীন মত হলো একটি কার্যকর গণতন্ত্রের অপরিহার্য উপাদান। টুইটার হলো সেই ডিজিটাল ক্ষেত্র; ভবিষ্যৎ মানবতার প্রশ্নে যে বিতর্ক চলমান সেখানে একটি গুরুত্বপূর্ণ জায়গা।’ তিনি বলেন, ‘আমি টুইটারকে আরও ভালো অবস্থানে নিতে চাই। নতুন ফিচার যুক্ত করা, আস্থা বাড়ানোর লক্ষ্যে এর অ্যালগরিদম উন্মুক্ত (ওপেন সোর্স) করা, স্প্যাম প্রতিরোধে ব্যবস্থা নেওয়া এবং সেই সঙ্গে সব ব্যবহারকারীর পরিচয় নিশ্চিতের ব্যবস্থা করার মাধ্যমে সে লক্ষ্য অর্জিত হবে। টুইটারের সক্ষমতা অবিশ্বাস্য এই সম্ভাবনাকে উন্মোচন করতে কোম্পানি এবং টুইটার কমিউনিটির সঙ্গে কাজ করার জন্য আমি মুখিয়ে আছি।’ বাস্তবে কী ঘটে তা আমরা দেখব।
বলাবাহুল্য, প্রাইভেট কোম্পানিটির মালিকানা ইলন মাস্ক নেওয়ার মাধ্যমে টুইটারের বহুমুখী সমাস্যার সমাধান হয়ে যাবে না। তথ্যমতে, মাস্ক ১৫ বছরের পুরোনো কোম্পানিকে নতুন করে দাঁড় করাতে ব্যাপক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছেন। কয়েক বছর ধরে টুইটার ব্যবহারকারীর প্রবৃদ্ধি স্থির হয়ে আছে। তার অসম আয়ও স্পষ্ট। বিজ্ঞাপন শিল্পের কর্মকর্তারা সোমবার সতর্ক করে বলেছেন, মাস্ক যদি কনটেন্টের ওপর নিয়ন্ত্রণ শিথিল করেন, ভুয়া তথ্য গ্রহণ করেন এবং বিষাক্ত উপাদান বিকাশের সুযোগ দেন তবে বিজ্ঞাপনদাতারা টুইটার ছেড়ে ভাগবেন। মাস্ক নিজেও হয়তো এ ব্যাপারে টুইটারের প্রায় সাড়ে সাত হাজার কর্মীর বাধার মুখে পড়তে পারেন। ওইসব কর্মীর অনেকেই মাস্কের স্বাধীন মতপ্রকাশের রাজনীতির ‘ব্র্যান্ড’ পছন্দ করেন না। Continue reading