Category Archives: অনুবাদ

সেনা অভ্যুত্থান: রোহিঙ্গাদের জন্য দুঃসংবাদ

লেখক:  মেরভে শেবনেম ওরুচ

এ সপ্তাহে ( ফেব্রুয়ারি) দক্ষিণ এশিয়ার দেশ মিয়ানমারে সামরিক অভ্যুত্থান ঘটেছে। মিয়ানমারের নেত্রী ও স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি, সু চির বিশ্বস্ত ও মিয়ানমারের প্রেসিডেন্ট উইন মিন্ট এবং তার দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি তথা এনএলডির সদস্যদের গ্রেপ্তার করে সেনা শাসক এক বছরের জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে। এটি বলার অপেক্ষা রাখে না যে, প্রায় সব ক্যু-ই নির্বাচিত সরকারের বিরুদ্ধে ‘দুর্নীতি’ কিংবা ‘অনিয়মের’ নামে হয়ে থাকে। মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী, যাদের দাপ্তরিক নাম তাৎমাদো-ও একই অভিযোগ এনেছে। মিয়ানমারে নভেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে এনএলএডির ভূমিধস বিজয়, যেখানে ক্ষমতাসীন দলটি ৮০ শতাংশের বেশি ভোট পেয়েছে। তারা ২০১৫ সালের চেয়েও বেশি ভোট পেয়েছে। নির্বাচনে সু চির দল ভুয়া ভোটারের অভিযোগ এনেছে। মিয়ানমারের নির্বাচনে সংসদের ৪৭৬টির মধ্যে এনএলডি ৩৯৬ আসনে জিতেছে। আর সেনাসমর্থিত দি ইউনিয়ন সলিডারিটি অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি (ইউএসডিপি) মাত্র ৩৩টি আসন পেয়েছে। সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরুর আগমুহূর্তেই সেখানে সামরিক অভ্যুত্থান হলো। দেশটির শক্তিশালী কমান্ডার সশস্ত্র বাহিনীর প্রধান সেনাবাহিনীর সিনিয়র জেনারেল মিং অং হ্লাইং এখন দেশটির প্রেসিডেন্ট।

১৯৬২ সালের পর প্রায় অর্ধশতক সামরিক জান্তার শাসন দেখেছে দেশটি। যেখানে বার্মিজ জাতীয়তাবাদী ও থেরাভাডা বৌদ্ধদের মিলমিশের শাসনে দেশটির সংখ্যালঘুরা মারাত্মক বৈষম্যের শিকার হয়। সেখানে অন্তত একশ জাতিগোষ্ঠী বাস করছে। মিয়ানমার সরকার ও সেনাবাহিনী সেখানে ১৬টি সশস্ত্র জাতিগোষ্ঠীর সঙ্গে লড়াই করে আসছে, যাদের অনেকে নিজেদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে চায়। আর অন্যরা স্বাধীনতা, স্বায়ত্তশাসন কিংবা দেশটিতে ফেডারেল সরকার চায়। Continue reading

রোহিঙ্গাদের সমর্থনে জো বাইডেনের এগিয়ে আসা উচিত

লেখক: ম্যাথু স্মিথ ও অ্যান্ড্রু রিলে

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ২০১৭ সালে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর হামলা ও গণহত্যা পরিচালনা করার সময় বাংলাদেশে সাত লক্ষাধিক পুরুষ, নারী ও শিশু পালিয়ে আসে। যারা পেছনে রেখে আসে বুলেট, আগুন ও ধ্বংসযজ্ঞ। সেনাবাহিনী ও তাদের সহযোগীরা গ্রামকে গ্রাম পুড়িয়ে দেয়। রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর অনেকের দীর্ঘ শারীরিক ক্ষত সারলেও এখনও মানসিক আতঙ্ক কাটেনি। যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে তাদের জন্য কিছু করা উচিত।

বাংলাদেশে এখন দশ লক্ষাধিক রোহিঙ্গার বাস। তারা এক ধরনের আতঙ্ক, হতাশা, উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠার অভিজ্ঞতা পেছনে ফেলে এসেছে। ফর্টিফাই রাইটসের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদন মতে, বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শিবিরে থাকা ৮৯ শতাংশ রোহিঙ্গা শরণার্থীই ভীষণ হতাশায় ভুগছে। ৬২ শতাংশ ভুগছে ট্রমা-পরবর্তী বিষণ্ণতায়। এই চরম হতাশা কোন দিকে মোড় নেবে?

মিয়ানমারে চলমান গণহত্যা দীর্ঘদিন ধরে সেখানে চলা মানবাধিকার লঙ্ঘনের অংশবিশেষ। অপরাধ সংঘটিত করেও সেখানে দায়মুক্তির ব্যবস্থা রোহিঙ্গাদের মানসিক অবস্থার ওপর আরও বেশি প্রভাব ফেলছে। ট্রমা নিয়ে গবেষণা হয় সাধারণত একটি নির্দিষ্ট ঘটনাকে ফোকাস করে। তা হলো- কোনো দুর্ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী, প্রিয় কোনো মানুষের মৃত্যু কিংবা কোনো সহিংস আক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়া। তবে এর মধ্যে মানসিক স্বাস্থ্যবিজ্ঞানে দীর্ঘমেয়াদে শরণার্থীদের ওপর পরিকল্পিত মানবাধিকার লঙ্ঘনের কারণে সৃষ্ট ট্রমার যথাযথ আলোচনা নেই।
Continue reading

দুর্যোগের পৃথিবী এবং আমাদের দায়

Secretary-General António Guterres holds a lecture at Columbia University entitled “State of the Planet”.

লেখক: আন্তেনিও গুতেরেস

আমরা একটি বিধ্বংসী মহামারি মোকাবিলা করছি। একটি সমতা, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও টেকসই উন্নয়নের বিপরীতে আমরা দেখছি, বৈশ্বিক তাপমাত্রার নতুন উচ্চতা, বাস্তুসংস্থান অবক্ষয়ের নতুন মাত্রা ও বৈশ্বিক লক্ষ্য অর্জনের নতুন সংকট। এক কথায় বলতে গেলে, আমাদের এই পৃথিবীর এক ভঙ্গুর দশা।

মানুষ যেন প্রকৃতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করছে। এটি আত্মঘাতী। প্রকৃতি সবসময়ই তা ফিরিয়ে দেয়। আর তার প্রকাশ আমরা দেখছি আরও শক্ত ও রুদ্ররূপে। জীববৈচিত্র্য ধ্বংস হচ্ছে। দশ লাখ প্রজাতি বিলুপ্ত হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে। বাস্তুতন্ত্র আমাদের চোখের সামনেই নিঃশেষ হয়ে যাচ্ছে। মরুভূমি প্রসারিত হচ্ছে। জলাভূমি হারিয়ে যাচ্ছে।

প্রতিবছর আমরা এক কোটি হেক্টর বন হারাচ্ছি। সমুদ্রগুলোতে মাছ নিঃশেষ হয়ে প্লাস্টিক বর্জ্যের স্তূপে পরিণত হচ্ছে। এগুলো কার্বন ডাই-অক্সাইড গ্রহণ করছে বলে সমুদ্রকে বিষাক্ত করে ফেলছে। কোরাল দ্বীপগুলো মরে যাচ্ছে। প্রতিবছর বায়ু ও পানিদূষণে ৯০ লাখ মানুষ মারা যাচ্ছে, যা বর্তমান মহামারির চেয়েও ছয়গুণ বেশি। মানুষ যেভাবে প্রাণীর আবাসন ধ্বংস করছে এবং বন্যপ্রাণীর বসবাসে হস্তক্ষেপ করছে, তাতে আমরা হয়তো আর এক ভাইরাসের অস্তিত্ব দেখতে পাব, যেটা প্রাণী থেকে মানুষের দেহে আসছে। ভুলে যাওয়া চলবে না, মানুষের সংক্রামক রোগের ৭৫ ভাগই প্রাণী থেকে আগত।

Continue reading

আমেরিকান সমাজে বিপজ্জনক বিভক্তি দেখা দিয়েছে : বারাক ওবামা

বারাক ওবামা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ৪৪তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সদ্য সমাপ্ত মার্কিন নির্বাচনের পর প্রথম তিনি সিবিএস নিউজে এক সাক্ষাৎকার প্রদান করেন। সাক্ষাৎকারটি গ্রহণ করেন সাংবাদিক স্কট পেলি। দীর্ঘ এ সাক্ষাৎকারের চুম্বক অংশ ভাষান্তর করেছেন মাহফুজুর রহমান মানিক

স্কট পেলি: এ মুহূর্তে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের জন্য আপনার পরামর্শ কী?

বারাক ওবামা: দেখুন, প্রেসিডেন্ট হলেন জনসেবক। নিয়ম অনুযায়ী তাদের সময় সীমিত। মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে আপনি চলে যাবেন। আপনার ব্যক্তিগত ইগো, আগ্রহ কিংবা হতাশার বাইরে গিয়ে আপনাকে দেশের স্বার্থ আগে চিন্তা করতে হবে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রতি আমার পরামর্শ হলো- যদি আপনি মনে করেন, আপনার শেষ কর্ম দ্বারা মানুষ আপনাকে স্মরণ করুক, যে দেশকে সর্বাগ্রে প্রাধান্য দিয়েছে, তাহলে আপনাকে সেটাই করতে হবে।

স্কট পেলি: তার মানে আপনি বলছেন, তাকে নির্বাচনের ফল মেনে নিয়ে চলে যাওয়া উচিত?

বারাক ওবামা: হ্যাঁ, অবশ্যই। আমি তো মনে করি, তাকে নির্বাচনের পরদিন কিংবা দু’দিনের মধ্যেই তার ফল মেনে নেওয়া উচিত ছিল। আপনি যদি নিরপেক্ষভাবে সংখ্যার বিচার করেন, দেখা যাচ্ছিল জো বাইডেন সহজেই জিতে যাচ্ছেন। যেসব রাজ্যে নির্বাচনের ফল বাকি ছিল, তাতে নির্বাচনের উল্টো ফল হওয়ার মতো অবস্থা ছিল না। স্বীকার করার চেয়েও বড় বিষয়, ট্রাম্পের হোয়াইট হাউস পরবর্তী প্রশাসনের জন্য সাধারণ ফান্ড ও সুবিধাদি আরও কমিয়ে দিচ্ছে। নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট বাইডেন জাতীয় নিরাপত্তার গোপন সারসংক্ষেপ পাচ্ছেন না। অথচ ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর তা পেতেন।

স্কট পেলি: এ অবস্থায় আমাদের প্রতিদ্বন্দ্বী রাশিয়া, চীন কী ভাবছে বলে আপনার ধারণা।

বারাক ওবামা: দেখুন, আমি মনে করি, আমাদের প্রতিদ্বন্দ্বীরা কেবল এই নির্বাচন-পরবর্তী অবস্থাই দেখছে না; বরং কয়েক বছর ধরেই আমাদের পর্যবেক্ষণ করছে। আমাদের রাজনীতিতে যে ফাটল ধরেছে, তারা হয়তো এর সুবিধা নেওয়ার চেষ্টা করবে। একটা প্রবাদ আছে, পানির কিনারায় থাকতেই দলীয় রাজনীতি বন্ধ করা উচিত। আর বৈদেশিক নীতির ক্ষেত্রে তো অবশ্যই। কারণ, এই আমেরিকা মানে যুক্তরাষ্ট্র, বিভক্ত রাষ্ট্র নয়। Continue reading

কর্তৃত্ববাদের বিরুদ্ধে অহিংস প্রতিবাদ

যদি কর্তৃত্ববাদের আচরণ একই হয়, সেখানে প্রতিবাদের ক্ষেত্রে অভিন্ন কারণও স্পষ্ট।

লেখক: অমর্ত্য সেন

দার্শনিক এমানুয়েল কান্ট যেমনটা বলেছেন, ‘যে কোনো বিষয়ে কারও মত প্রকাশ্যে তুলে ধরার স্বাধীনতার’ মতো গুরুত্বপূর্ণ আর কী হতে পারে। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত, কান্ট এটাও বলেছেন, সমাজই তর্কের সুযোগ প্রায়শ বন্ধ করে দেয়। কখনও কঠোরভাবেই বন্ধ করে। আজকের বিশ্বের একটি দুঃখজনক বাস্তবতা হলো- এশিয়া, ইউরোপ, লাতিন আমেরিকা, আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ, এমনকি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও কর্তৃত্ববাদী শাসনের প্রবণতা লক্ষণীয়। অপ্রিয় হলেও সত্য, এ তালিকায় আমার দেশ ভারতকেও অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। ভারতও সেই দুর্ভাগ্যজনক দেশগুলোর অন্যতম।

ভারত ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসন থেকে স্বাধীন হওয়ার পর কয়েক দশক ধরে ব্যক্তিস্বাধীনতাসহ অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক চর্চার মধ্য দিয়ে অগ্রসর হয়েছিল। মানুষ তাদের স্বাধীনতার প্রতি দায়বদ্ধতার পরিচয় দেয়। তারা কঠোর ঐক্যবদ্ধ কর্মসূচির মাধ্যমে কর্তৃত্ববাদী শাসন ব্যবস্থার বিলোপ সাধন করে সেই স্বাধীনতার প্রতি তাদের সংকল্পও প্রদর্শন করে। উদাহরণস্বরূপ ১৯৭৭ সালের নির্বাচনের কথা বলা যায়। যে নির্বাচনে স্বৈরাচারী আইন যাকে ‘জরুরি অবস্থা’ বলে ঘোষণা করা হয়, তাকে মানুষ কঠোরভাবে প্রত্যাখ্যান করেছিল। সরকার দ্রুতই তা মেনে নেয়।

যা হোক, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে স্বাধীনতা দৃশ্যত অনেকের ক্ষেত্রেই অকার্যকর হয়ে পড়েছে। তারই আলোকে বর্তমান সরকার সেখানে ভিন্ন ধরনের সমাজ গড়তে আগ্রাসী নজির হাজির করছে। সরকারবিরোধী আন্দোলন দমন করতে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হচ্ছে, যাকে বিস্ময়করভাবে গ্রেপ্তারের প্রয়োজনীয় উপাত্ত হাজির করে ও বিরোধী নেতাদের বন্দি করে ‘রাষ্ট্রদ্রোহ’ হিসেবে বর্ণনা করছে সরকার। এ প্রক্রিয়ার ভেতরে স্বৈরাচারী মনোভাবের বাইরেও চিন্তার গভীর সংশয় রয়েছে। কারণ সরকারের সঙ্গে দ্বিমত মানে রাষ্ট্রদ্রোহ কিংবা কাউকে উৎখাত নয় Continue reading

বাংলাদেশ যেভাবে মিয়ানমারকে চাপে ফেলতে পারে

মিয়ানমারকে অপরাধী রাষ্ট্র হিসেবে তার অপরাধের জন্য শাস্তিস্বরূপ অবশ্যই ক্ষতিপূরণ দিতে হবে

মূল : মং জারনি

গত সপ্তাহে লন্ডনে একত্রিত হয়েছিলেন জাতিসংঘের আন্তর্জাতিক নিরপেক্ষ তথ্য-অনুসন্ধান মিশনের ক্রিস সিডটি, যুক্তরাজ্যে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার ও বাংলাদেশের একটি বিশেষজ্ঞ দল। ১২ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থীর মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনের চ্যালেঞ্জ নিয়ে তারা আলোচনা করেন। এটা এমন সময়ে অনুষ্ঠিত হয়, যখন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন মিয়ানমারকে প্রত্যাবাসনের জন্য প্রস্তুত রোহিঙ্গাদের আদিবাস সম্পর্কে ‘মিথ্যাচারের’ জন্য দায়ী করেন। যদিও বাংলাদেশ-মিয়ানমার গত বছরের অক্টোবরে প্রত্যাবাসনের একটি চুক্তি করে, কিন্তু জাতিসংঘ ও অন্যান্য আন্তর্জাতিক পর্যবেক্ষকরা মনে করেন, রোহিঙ্গাদের ফিরে যাওয়ার মতো ইতিবাচক পরিবেশ তৈরি হয়নি। প্রত্যাবাসনের জন্য সম্ভাব্য ৮০০ গ্রামের মধ্যে মাত্র দুটি গ্রামের পরিবেশ ইতিবাচক বলে জানা যায়।

আর সমস্যাটা এখানেই। বাংলাদেশে দীর্ঘদিন ধরে এত বেশি রোহিঙ্গার উপস্থিতি সাধারণ কোনো বিষয় নয়। বাংলাদেশ সরকার বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম এই শরণার্থী জনগোষ্ঠীকে সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে। শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন বিষয়ক কমিশনার আবুল কালামের মত, চাহিদার (রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় বার্ষিক পরিকল্পনা ৯২০ মিলিয়ন ডলার) মাত্র ২২ শতাংশ মিটেছে। মিয়ানমারের গণহত্যা থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া ১২ লাখ রোহিঙ্গার আশ্রয় ও খাবারের বন্দোবস্ত করা বাংলাদেশের মতো সীমিত সম্পদের দেশের জন্য বোঝাস্বরূপ। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের পর্যাপ্ত সাহায্য ছাড়া কেবল ঢাকার এ শরণার্থীর বোঝা বহন করা অন্যায্য।

অধিকন্তু, বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের স্থায়ীভাবে বসবাসের ব্যবস্থাকরণ প্রকারান্তরে মিয়ানমারের গণহত্যাকেই স্বীকৃতি দেবে। ১৯৭৮ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে মিয়ানমারের সামরিক স্বৈরশাসক জেনারেল নে উইনের সময়কালে মিয়ানমারের রাখাইন থেকে রোহিঙ্গাদের উপস্থিতি নিশ্চিহ্ন করার পরিকল্পিত প্রচার শুরু করা হয়। এর পর তারা মিয়ানমারে রাখাইনের অধিবাসীদের বিরুদ্ধে নৃশংস ও সন্ত্রাসী প্রচারণায় অংশ নেয়। নে উইন রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব কেড়ে নেন। একই সঙ্গে মিয়ানমারের পরবর্তী শাসনগুলোতে সামরিক কিংবা বেসামরিক উভয় আমলে সবাই একই পথে হাঁটে। গত চার দশকেরও বেশি সময় ধরে মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয়ভাবে পরিচালিত নিপীড়নকে জায়েজ করার চেষ্টা করছে।
Continue reading

ভারতে ভুয়া খবরের জমজমাট বাজার

ভারতের লোকসভা নির্বাচন শুরু হচ্ছে ১১ এপ্রিল ২০১৯

মূল : ক্রিস্টোফ জ্যাফ্রেলট

গত মাসে মাইক্রোসফট একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাতে বলা হয়, বিশ্বের যে কোনো দেশের তুলনায় ভারতে বেশি ভুয়া খবর বের হয়। তা না হলে শত বছর আগের সত্য কীভাবে এখন এসে মিথ্যা হিসেবে প্রচার পায়? অথচ স্বামী দয়ানন্দ সরস্বতী লিখেছেন- সত্যার্থ প্রকাশ। মাহাত্মা গান্ধী লিখেছেন- দ্য স্টোরি অব মাই এক্সপেরিমেন্টস উইথ ট্রুথ।
সম্প্রতি দাবি করা হয়, কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন সংযুক্ত প্রগতিশীল জোট বা ইউপিএ জইশ-ই-মোহাম্মদের প্রতিষ্ঠাতা মাসুদ আজহারের মুক্তির জন্য দায়ী। প্রকৃত সত্য হলো, তাকে বিজেপির প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারি বাজপেয়ি সরকার পাকিস্তানের হাতে তুলে দেয়। আবার প্রচারণা চালানো হয় যে, পাকিস্তান যখন ১৯৬৫ সালে ভারত আক্রমণ করে, জওহরলাল নেহরু তখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। অথচ তখন ভারতের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন লাল বাহাদুর শাস্ত্রী। আবার ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির মতে, জওহরলাল নেহরু ইন্দিরা গান্ধীকে কংগ্রেস সভাপতি করে রাজনৈতিক উত্তরাধিকার প্রথা চালু করেন। আসলে নেহরু বিষয়টি অনেক আগেই পরিস্কার করেন, কংগ্রেস চাইলে এ সিদ্ধান্ত নিতে পারে- কে তার আসনে বসবেন।
এ রকম ভুয়া খবর নিয়ে ভারতের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সরগরম। সম্প্রতি ভারতের নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা ফেসবুক, টুইটার, হোয়াটসঅ্যাপ, গুগল ও টিকটকের মতো ইন্টারনেট অ্যাপিল্গকেশনের প্রতিনিধিদের সঙ্গে দু’দিনব্যাপী বৈঠক করেন। ভারতের প্রধান নির্বাচন কমিশনার সুনিল অরোরা বলতে বাধ্য হয়েছেন, ‘আমরা চাই যাতে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে একটি নির্দিষ্ট আচরণবিধি রাখা হয়, যাতে করে এই অ্যাপগুলোকে ভুল খবর ছড়াতে ব্যবহার না করা যায়। কেন ভারতে এ রকম ভুয়া খবর প্রচার হচ্ছে? এসব খবর ভারতের জন্যই সম্মানহানিকর।’
গত পাঁচ বছরে অনেক গুজব ছড়ানো হয়। এমনকি ফটোশপে ছবি সম্পাদনা করে দেখানো হয় যে, ১৯৮৮ সালে কাবুলে আবদুল গাফফার খানের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় রাজীব গান্ধী ও রাহুল গান্ধী হাজির হন। এটাও বলা হয়, ইন্দিরা গান্ধীকে মুসলিম কায়দায় সমাহিত করা হয়। ফটোশপে আরও দেখানো হয়, বর্তমান রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী আশোক গহলোট পাকিস্তানের পতাকা উড়াচ্ছেন। আরও দেখানো হয়, রোহিঙ্গারা হিন্দুদের হত্যা করে তাদের গোশত খাচ্ছে। এ রকম তালিকা আরও দীর্ঘ। Continue reading

সম্মানজনক ও নিরাপদ জীবন নিশ্চিত করুন

রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর প্রত্যাবাসন একটি বড় চ্যালেঞ্জ

মূল : মাইকেল বসিরকিউ

বাংলাদেশের কক্সবাজারের কাছে রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির কুতুপালংয়ে বিদেশি সাংবাদিক ও আমাদের একটি দলের সঙ্গে আলাপকালে জামিলা মিয়ানমার থেকে পালানোর অভিজ্ঞতা বলছিলেন। জামিলা বলেছেন, গত বছরের আগস্টে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে যখন সেনাবাহিনীর পোশাক পরিহিতরা তাদের গ্রামের ওপর হামলা করে তার স্বামী ও পুত্রকে হত্যা করে, তখন তিনি পালিয়ে আসেন। ‘এখানে আসতে আমার ১৫ দিন সময় লাগে’- তার শিশুকে বুকে জড়িয়ে নিয়ে হাজির হন এ আশ্রয়কেন্দ্রে। সুফিয়া বলেছেন, ‘আমি কেবল তখনই ফিরে যাব, যখন মিয়ানমারে স্থিতাবস্থা তৈরি এবং সেখানে আশ্রয়ের নিরাপত্তা দেওয়া হয়।’

আশ্রয় শিবিরে আশ্রয় নেওয়া তিন সন্তানের জনক হাফিজও বলেছেন, তিনি তখনই মিয়ানমার ফিরে যাবেন, যখন কর্তৃপক্ষ তাদের পূর্ণ নাগরিকত্ব প্রদান করবেন।

তাদের গল্প আসলে সাত লাখ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীরই প্রতিচ্ছবি। যারা গত বছরের আগস্ট মাসের শেষ দিক থেকে তাদের ভাষায় অবর্ণনীয় সহিংসতার মধ্য দিয়ে রাখাইন থেকে বাংলাদেশে আসে। ফলে তাদের প্রত্যাবাসন একটি বড় চ্যালেঞ্জ।

মিয়ানমারে অবাঞ্ছিত রোহিঙ্গারা আশ্রয় নিয়েছে বাংলাদেশে। রাখাইনে এখন সংখ্যালঘুদের খুব অল্পই রয়েছে। এখন এ অঞ্চলের সবার উচিত, একটি টেকসই সমাধানের দিকে এগোনো। এ ক্ষেত্রে নেতৃত্ব দিতে হবে বাংলাদেশকেই। কারণ বাংলাদেশেই সবচেয়ে বেশি রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী আশ্রয় নিয়েছে। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব নেতৃত্বের কাছে সে দাবি জানিয়েছেন। শেখ হাসিনার ভূমিকার কারণে তার সমর্থকরা তাকে ‘মাদার অব হিউম্যানিটি’ হিসেবে আখ্যায়িত করেন। মানবাধিকার রক্ষায় তার ভূমিকার কারণে অনেকেই ৭১ বছর বয়সী এ নেত্রীকে শান্তিতে নোবেল পুরস্কার দেওয়ার কথা বলছেন। Continue reading

কাগজ-কলমের সম্পর্ক!

চিকিৎসক ও রোগীর সম্পর্ক আপাতদৃষ্টিতে কাগজ-কলমের। রোগী অসুস্থ হলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন। চিকিৎসক রোগীর অবস্থা অনুযায়ী ব্যবস্থাপত্র লেখেন। ব্যবস্থাপত্রে রোগের বিবরণ, পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও ওষুধপথ্যের বিস্তারিত লিখে থাকেন। চিকিৎসকের সঙ্গে অল্প সময়ের সাক্ষাতের পর সুস্থতায় পরবর্তী পদক্ষেপে ব্যবস্থাপত্রই ভরসা। স্বাভাবিকভাবেই সে ব্যবস্থাপত্র বা প্রেসক্রিপশন হওয়া উচিত সহজ-সরল, সাবলীল ও বোধগম্য। অথচ অধিকাংশ ক্ষেত্রেই দেখা যায় রোগী ব্যবস্থাপত্র বোঝেন না; এমনকি কোনো কোনো ক্ষেত্রে চিকিৎসার সঙ্গে জড়িত অন্যরাও বোঝেন না। দেখা গেল, চিকিৎসক এক ওষুধ লিখলেন আর ফার্মেসি থেকে দেওয়া হলো ভিন্ন ওষুধ। তা কারও মৃত্যুর কারণও হতে পারে। এ অসুবিধার জন্য গত বছরের শুরুতে আদালত থেকে রায় আসে পরিস্কার হস্তাক্ষরে ব্যবস্থাপত্র লিখতে।
বলা বাহুল্য, ব্যবস্থাপত্র সমস্যা শুধু আমাদেরই নয়। আন্তর্জাতিক সমস্যা। এমনকি যে ইংরেজিতে ব্যবস্থাপত্র লেখা হয়, সে ইংরেজির পীঠস্থান খোদ ব্রিটেনেও সম্প্রতি এ নিয়ে নির্দেশনা জারি হয়েছে। Continue reading

ডেল্টা পরিকল্পনায় বাংলাদেশের পাশে নেদারল্যান্ডস

বাংলাদেশের সদ্যবিদায়ী ডাচ্ রাষ্ট্রদূত লিওনি কুয়েলিনায়ের নেদারল্যান্ডসভিত্তিক ওয়েবসাইট নেক্সটব্লুর সঙ্গে কথা বলেছেন বাংলাদেশের পরিবেশ, পানি, ডেল্টা প্ল্যান বাস্তবায়ন ও এ ক্ষেত্রে নেদারল্যান্ডসের সহযোগিতা বিষয়ে

নেক্সট ব্লু :বাংলাদেশ ও নেদারল্যান্ডসের সঙ্গে পানি বিষয়ক সহযোগিতা অনেক দিনের। এর অর্জন কী?

লিওনি কুয়েলিনায়ের :হ্যাঁ, অনেক দিনের। শুরুটা হয়েছিল ১৯৫৫ সালে। ১৯৫৩ সালে যখন পূর্ব পাকিস্তানে (বর্তমান বাংলাদেশ) বন্যা হয়, তখন দু’দেশের প্রকৌশলীরা একত্রে কাজ করেন। সেটাই ছিল শুরু। এখনও বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য প্রকৌশলী নেদারল্যান্ডসের ডেলফটে অবস্থিত ইনস্টিটিউট ফর ওয়াটার এডুকেশন-আইএইচইতে কাজ করছেন। ২০১৪ সালেও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নেদারল্যান্ডসকে পুনরায় দুর্যোগে সহায়তা করার অনুরোধ জানান। এবারের কাজ বন্যা মোকাবেলা ও নিরাপদ খাবার পানির ব্যবস্থাপনা তথা ডেল্টা প্ল্যান।

বাংলাদেশের ডেল্টা প্ল্যানকে ডাচ্‌ ডেল্টা প্ল্যানের সঙ্গে তুলনা করা যায়। ডাচ্‌ ডেল্টা প্ল্যান ২০০৮ সালে ভিরম্যান কমিশন প্রণয়ন করেছিল। বলা চলে, উভয় ডেল্টা প্ল্যানের উদ্দেশ্য একই রকম :নিরাপদ, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলা ও অর্থনৈতিকভাবে শক্তিশালী ব-দ্বীপ গড়ে তোলা। যদিও দু’দেশের বাস্তবতা ভিন্ন। কারণ বাংলাদেশের জনসংখ্যা অনেক। প্রতি বছর দেশটিতে ২০ লাখ মানুষ বাড়ছে। যা হোক ২১০০ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের ডেল্টা পরিকল্পনা বাস্তবায়নে প্রযুক্তিগত দিক থেকে নেদারল্যান্ডসের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।

বাংলাদেশের ডেল্টা প্ল্যান বা এই ব-দ্বীপের পরিকল্পনা খুব জরুরি। কারণ আমরা দেখি, উপকূলীয় এলাকার অনেক গ্রাম প্রায়ই বন্যার পানিতে ভেসে যায়। লবণাক্ততা ও পানি জমে থাকার কারণে সেখানকার কৃষিজমি অনুর্বরহয়ে পড়ে। Continue reading