Monthly Archives: এপ্রিল ২০১৯

ভারতে ভুয়া খবরের জমজমাট বাজার

ভারতের লোকসভা নির্বাচন শুরু হচ্ছে ১১ এপ্রিল ২০১৯

মূল : ক্রিস্টোফ জ্যাফ্রেলট

গত মাসে মাইক্রোসফট একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাতে বলা হয়, বিশ্বের যে কোনো দেশের তুলনায় ভারতে বেশি ভুয়া খবর বের হয়। তা না হলে শত বছর আগের সত্য কীভাবে এখন এসে মিথ্যা হিসেবে প্রচার পায়? অথচ স্বামী দয়ানন্দ সরস্বতী লিখেছেন- সত্যার্থ প্রকাশ। মাহাত্মা গান্ধী লিখেছেন- দ্য স্টোরি অব মাই এক্সপেরিমেন্টস উইথ ট্রুথ।
সম্প্রতি দাবি করা হয়, কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন সংযুক্ত প্রগতিশীল জোট বা ইউপিএ জইশ-ই-মোহাম্মদের প্রতিষ্ঠাতা মাসুদ আজহারের মুক্তির জন্য দায়ী। প্রকৃত সত্য হলো, তাকে বিজেপির প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারি বাজপেয়ি সরকার পাকিস্তানের হাতে তুলে দেয়। আবার প্রচারণা চালানো হয় যে, পাকিস্তান যখন ১৯৬৫ সালে ভারত আক্রমণ করে, জওহরলাল নেহরু তখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। অথচ তখন ভারতের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন লাল বাহাদুর শাস্ত্রী। আবার ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলির মতে, জওহরলাল নেহরু ইন্দিরা গান্ধীকে কংগ্রেস সভাপতি করে রাজনৈতিক উত্তরাধিকার প্রথা চালু করেন। আসলে নেহরু বিষয়টি অনেক আগেই পরিস্কার করেন, কংগ্রেস চাইলে এ সিদ্ধান্ত নিতে পারে- কে তার আসনে বসবেন।
এ রকম ভুয়া খবর নিয়ে ভারতের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সরগরম। সম্প্রতি ভারতের নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা ফেসবুক, টুইটার, হোয়াটসঅ্যাপ, গুগল ও টিকটকের মতো ইন্টারনেট অ্যাপিল্গকেশনের প্রতিনিধিদের সঙ্গে দু’দিনব্যাপী বৈঠক করেন। ভারতের প্রধান নির্বাচন কমিশনার সুনিল অরোরা বলতে বাধ্য হয়েছেন, ‘আমরা চাই যাতে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে একটি নির্দিষ্ট আচরণবিধি রাখা হয়, যাতে করে এই অ্যাপগুলোকে ভুল খবর ছড়াতে ব্যবহার না করা যায়। কেন ভারতে এ রকম ভুয়া খবর প্রচার হচ্ছে? এসব খবর ভারতের জন্যই সম্মানহানিকর।’
গত পাঁচ বছরে অনেক গুজব ছড়ানো হয়। এমনকি ফটোশপে ছবি সম্পাদনা করে দেখানো হয় যে, ১৯৮৮ সালে কাবুলে আবদুল গাফফার খানের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় রাজীব গান্ধী ও রাহুল গান্ধী হাজির হন। এটাও বলা হয়, ইন্দিরা গান্ধীকে মুসলিম কায়দায় সমাহিত করা হয়। ফটোশপে আরও দেখানো হয়, বর্তমান রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী আশোক গহলোট পাকিস্তানের পতাকা উড়াচ্ছেন। আরও দেখানো হয়, রোহিঙ্গারা হিন্দুদের হত্যা করে তাদের গোশত খাচ্ছে। এ রকম তালিকা আরও দীর্ঘ। Continue reading