Monthly Archives: এপ্রিল ২০১৭

মাছের সংবাদ-দুঃসংবাদ

মাছ ধরছে মানুষ

বৈশাখ এসেছে প্রায় দেড় সপ্তাহ হয়ে যাচ্ছে। বৈশাখের সঙ্গে নানাভাবে মাছের প্রসঙ্গ আসে। এই সময়ে ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ আর ইলিশের বড় হওয়ার সময় বলে অন্য মাছ খাওয়ার পরামর্শ দেন অনেকে। এ বছর ইলিশের পরিবর্তে সরপুঁটি ও পান্তা ভাত দিয়ে পহেলা বৈশাখ উদযাপন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। অবশ্য কেবল বৈশাখই নয়, মাছের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক আরও গভীরে। ভাতের সঙ্গে মাছ ছাড়া যে অনেকের চলেই না। ‘মাছে-ভাতে বাঙালি’ কথাটি তো আর এমনিই আসেনি। বলাবাহুল্য, আমরা যেমন মাছ খাচ্ছি তেমনি এখানে মাছের উৎপাদনও কম নয়। গত জুলাই মাসে প্রকাশিত জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশের অবস্থান বিশ্বে চতুর্থ। এর আগের বছর অবস্থান ছিল পঞ্চম। এটি অবশ্য স্বাদু পানির মাছ উৎপাদনের হিসাব। হিসাবমতে, ২০১৪ সালে বাংলাদেশে ৩৪ লাখ ৩৪ হাজার টন স্বাদু পানির মাছ উৎপাদিত হয়েছে। আর ভারত একই সময়ে স্বাদু পানির মাছ উৎপাদন করেছে ৭৩ লাখ ৬৩ হাজার টন। মাছ উৎপাদনে ভারতের অবস্থান তৃতীয়।
দেশের মাছের এ উৎপাদন নিয়ে আমরা গর্ব করতেই পারি। দিন দিন উৎপাদন বাড়ছে বলে কেউ কেউ মনে করছেন, মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশ হতে পারে এক নম্বর। এমনকি এ নিয়ে যখন নানা গবেষণা ও মাতামাতি চলছে, তখন একটি খবর আমাদের নতুন করে ভাবাবে নিশ্চয়। ১১ এপ্রিল দ্য কনভারসেশন গ্গ্নোবাল সূত্রে হাফিংটন পোস্টে প্রকাশিত একটি গবেষণার প্রতিবেদন বলছে, ‘ইন বাংলাদেশ, পিপল আর ইটিং মোর ফিশ বাট গেটিং লেস নিউট্রিশন ফ্রম ইট.’ অর্থাৎ বাংলাদেশে মানুষ মাছ খাচ্ছে বেশি কিন্তু পুষ্টি পাচ্ছে কম। পিএলওএস-ওয়ান জার্নালে প্রকাশিত দেশি-বিদেশি নয়জনের গবেষণায় ফুটে ওঠে এ চিত্রContinue reading

বায়ুদূষণ রোধে স্কুলে ফেস মাস্ক

শিশুর ফুসফুসের ‘কার্যকারিতা কমাচ্ছে’ ঢাকার বায়ুদূষণ

ঢাকার মতো শহরে যাদের বাস তারা কি প্রাণভরে শ্বাস নিতে পারেন? বায়ুদূষণে যে শহরের মানুষ বিপর্যস্ত। শিশুরা বিপর্যস্ত। প্রতিবেদন বলছে, বায়ুদূষণের দিক থেকে এশিয়ার দ্বিতীয় শহর ঢাকা। সেখানে আমরা কীভাবে শ্বাস নেব? অথচ এ দূষণ থেকে বাঁচতে পদক্ষেপ যৎসামান্য। শিশুদের বাঁচাতেও আমরা নির্বিকার। এ ব্যাপারে অন্তত খোঁজ নেওয়া যায় অন্যরা কী করছে। উন্নত বিশ্বে যেখানে বায়ুদূষণ বেশি, সেখানে তারা কী ধরনের ব্যবস্থা নিচ্ছে। এ ক্ষেত্রে ইংল্যান্ডের স্কুলের একটি পদক্ষেপ আমাদের জন্য প্রাসঙ্গিক। ৩১ মার্চ বিবিসির একটি প্রতিবেদন দেখাচ্ছে, বায়ুদূষণ থেকে বাঁচতে লন্ডনের একটি প্রাইমারি স্কুল অভিভাবকদের তাদের সন্তানের জন্য ফেস মাস্ক কিনতে বলেছে। সেখানকার হিসাব বলছে, লন্ডনের প্রায় ৪৫০টি স্কুল বায়ুদূষণ অনিরাপদ অবস্থায় পেঁৗছেছে। শিক্ষার্থীদের বায়ুদূষণ থেকে নিরাপদ করতে পাইলট প্রকল্প হিসেবে স্কুল কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের ফেস মাস্ক ব্যবহার করার নির্দেশনা দেয়। এ নির্দেশনা বাস্তবায়নে স্কুলগুলো অভিভাবকদের ডেকে বিশেষজ্ঞদের মাধ্যমে বায়ুদূষণের ক্ষতিকর প্রভাব ও ফেস মাস্ক ব্যবহারের গুরুত্ব নিয়ে বিশেষ বক্তৃতা প্রদান করবে। এমনকি স্কুলগুলো বায়ুদূষণের ব্যাপারে মেয়র অফিসের সঙ্গে কাজ করবে বলেও বলছে প্রতিবেদনটি। Continue reading

গৃহহীন মানুষ : ঢাকা-লন্ডন এক কাতারে

ঢাকার ফুটপাত

মানুষ আছে অথচ কোথাও থাকে না, ঘুমায় না- এ রকমটা চিন্তা করা অকল্পনীয়। এর জন্য একটা বাসস্থানের প্রয়োজন। কিন্তু দেখা যায়, কিছু মানুষ আছে যাদের বাসস্থান নেই, ফুটপাতে কিংবা খোলা কোনো জায়গায় ঘুমায়। রাস্তার পাশেই পরিবারের সবাই মিলে বাস করছে। খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা ও শিক্ষা মানুষের মৌলিক অধিকার। এরপরও বাসস্থানহীন থাকছে মানুষ। এ চিত্র হয়তো আমরা বাংলাদেশে স্বাভাবিক হিসেবে নিতে পারি। কিন্তু উন্নত বিশ্বেও গৃহহীন থাকবে মানুষ, তা বিস্ময়কর।
বাস্তবতা হলো বাংলাদেশের মতো ইউরোপ-আমেরিকা তথা উন্নত বিশ্বেও ফুটপাতে থাকছে মানুষ। তারই সত্যায়ন করছে ২২ মার্চ যুক্তরাজ্যের প্রভাবশালী পত্রিকা গার্ডিয়ানে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন, ‘হোয়াট ক্যান দ্য ইউকে লার্ন ফ্রম হাউ ফিনল্যান্ড সলভড হোমলেসনেস? অর্থাৎ যুক্তরাজ্য গৃহহীন সমস্যার সমাধানে ফিনল্যান্ড থেকে যা শিখতে পারে। গার্ডিয়ানে তার আগের দিন খবর ছিল, ‘হোমলেসনেস এন্ড হাউজিং প্রবলেমস রিচ ক্রাইসিস পয়েন্ট ইন অল ইইউ কান্ট্রিজ- এক্সেপ্ট ফিনল্যান্ড’- মানে ফিনল্যান্ড ছাড়া সব ইউরোপীয় দেশে গৃহহীন ও আবাসন সমস্যা সংকটে রূপ নিয়েছে। লন্ডন, প্যারিস, ব্রাসেলস, ডাবলিন, ভিয়েনা, এথেন্স, ওয়ারশ ও বার্সেলোনার মতো ইউরোপের বড় বড় শহরে এ সমস্যা প্রকট। আমেরিকাও পিছিয়ে নেই, ন্যাশনাল অ্যালায়েন্স টু অ্যান্ড হোমলেসনেস নামক বেসরকারি সংস্থার জরিপ অনুযায়ী ২০১৬ সালে আমেরিকায় গৃহহীন লোকের সংখ্যা পাঁচ লাখ ৬৪ হাজার। প্রায় পাঁচ লাখ লোক ফুটপাতে, গাড়িতে, পার্কে, আশ্রয়কেন্দ্র্রে রাত যাপন করে। Continue reading