Monthly Archives: অক্টোবর ২০১৩

নীরবতা

Quietআমার বুঝ হওয়ার পর থেকে মনে হয়েছে অন্তত একটা দিক থেকে আমি ভাগ্যবান। যখনই শুনতাম অমুকের নেই তমুকের নেই অথচ আমার আছে তখনই তা মনে হতো। যদিও একজনের দিক থেকে আমরা ভাই-বোনরা বঞ্চিতই ছিলাম বলা চলে। তারপরও ভালো লাগতো; চারজনের মধ্যে একজন না থাকলে অমন কী।
দাদা-দাদী, নানা-নানীদের কথা বলছি। জন্মের পর থেকেই কাছে পেয়েছি দাদা-দাদীকে। তাদের আদর পেয়েছি। আশকারা পেয়েছি। নানাও ছিলেন আমাদের। কিন্তু নানীকে দেখার সৌভাগ্য হয়নি। মায়ের বিয়ের একবছর পর নাকি মারা গেছেন তিনি। নানা-নানীর বাড়িকে অনেকে নানীর বাড়ি বলেন। আমরা বলি নানার বাড়ি। ধারণা করছি আমাদের নানী নেই বলেই তা বলছি। তবে নানীর অভাব আমরা সেভাবে অনুভব করতে পারিনি। করতাম যদি কিছুদিন হলেও তার আদর পেতাম। এখন যেমন দাদা ও নানা মারা যাওয়ার পর তাদের মিস করছি।
তবে দাদা-দাদীর ভালোবাসা যেভাবে পেয়েছি বলার মত নয়। দাদার কথা আগে বলতে ইচ্ছে করছে। মানুষের একটা প্রবণতা আছে। বেঁচে থাকলে একে অপরের গুণ সেভাবে বলতে চায় না। মৃত্যুর পর সবাই সেটা অকপটে বলে- মানুষটি অসাধারণ ছিলেন। কখনো মিথ্যা কথা বলতেন না। খুব ভালো ছিলেন। সমাজে কেউ খারাপ হিসেবে পরিচিত থাকলেও তখন তার কোনো ভালো গুণ বের করে আনেন- আসলে তিনি যেমনই ছিলেন মানুষের উপকার করতেন। Continue reading

বরেণ্য সাংবাদিক ওবায়েদ উল হক

OBaএকজীবনে মানুষের পরিচয় কয়টা হতে পারে? এর নির্দিষ্ট কোনো উত্তর হয়তো নেই। তবে আমরা একটা পরিচয় দিয়েই অনেককে চিনি। ব্যক্তির এক পরিচয়ই তাকে বহন করে। এর বাইরেও বহুবিধ পরিচয়ের অধিকারী মানুষ থাকেন। যারা বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী, প্রতিভার বিভিন্ন শাখায় তাদের অবদান স্বমহিমায় উজ্জ্বল। প্রতিভা দিয়েই তারা বেঁচে থাকেন ইতিহাসের পাতায়। তাদেরই একজন ওবায়দ উল হক। তিনি একাধারে সাংবাদিক, সাহিত্যিক, চলিচ্চত্রকার। একই সঙ্গে লেখক, কবি, ঔপন্যাসিক, প্রযোজক, সুরকার ও গীতিকারও। তবে সবকিছু ছাপিয়ে সাংবাদিক পরিচয়ই তাকে বিশিষ্টতা দিয়েছে। যদিও তার সাংবাদিক হওয়ার ঘটনা কিছুটা চমকপ্রদ। Continue reading